বাস্তুদোষ ও প্রতিকার

যে কোনও বাড়ি, ফ্ল্যাট, অট্টালিকা অথবা কারখানা সম্পুর্ণরূপে বাস্তুনীতি অনুসরণ করে তৈরি করা অত্যন্ত শক্ত।নির্মাণ কার্যের একেবারে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত যদি অত্যন্ত সতর্ক হয়ে বাস্তুনীতি মেনে চলা যায় তা হলেই তা সম্পুর্ণরূপে বাস্তুসম্মত বাড়ি হয়ে উঠতে পারে।বাস্তু মেনে বাড়ি বা ফ্ল্যাট তৈরি না করা হলে তাতে বাস্তুদোষ রয়ে যায়।

বাস্তুশাস্ত্রীরা সেই সব দোষ কাটিয়ে ওঠার জন্য প্রতিকারের ব্যবস্থাও বলেছেন।বাস্তু বিশেষজ্ঞদের মতে, বাস্তু দোষ কাটানোরও ব্যবস্থা আছে।বাস্তু বিশেষজ্ঞদের অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে সংশোধনের নানা উপায় আছে ঠিকই, কিন্তু এ সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট বহুনীতি আছে, সম্পূর্ণ নীতিই দাঁড়িয়ে আছে অভিজ্ঞতার উপর নির্ভর করে, আবার যাদের জ্যোতিষ, বাস্তু, তন্ত্রশাস্ত্রের পারিবারিক ঐতিয্য পূর্ব থেকেই আছে তাঁদের অভিজ্ঞতা অনেক বেশী এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না।একে বলা হয় ফলিত বাস্তু বিধান।সুতরাং বাস্তুদোষ দূর করার ব্যাপারে বিশদভাবে না জানলে বিষয়টি সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা হওয়া সম্ভব নয়।বাস্তুদোষ হলেও অযথা ভয় পাওয়ার প্রয়োজন নেই।কারণ বাস্তুদোষ কাটানো যায়।এই বাস্তুদোষকে মোটামুটি দুটি শ্রেণীতে ভাগ করা যায়।

ক) প্রাথমিক দোষ খ) গৌণ দোষ

প্রাথমিক দোষ:

অনেক সময়ই কোনও বাড়ি তৈরির সময় কিছু দোষ নিয়ে তৈরি হয়।দোষগুলি হল: দিক্‌মূল জমি, শল্যদোষ, জমিস্তর দোষ, উত্তর-পূর্বে ছাঁটা জমি।

১।দিক্‌মূল জমি : যে জমির দুই প্রান্ত চৌম্বক অক্ষের (উত্তর-দক্ষিণ অক্ষ) সমান্তরাল নয় তাকে দিক্‌মূল জমি বলে।এইরূপ জমি পরিহার করা উচিত।তা যদি সম্ভব না হয় তবে অভিজ্ঞ বাস্তুকারকে দিয়ে নকশা প্রস্তুত করিয়ে তবেই বাড়ি করে বাস করা উচিত।

চিত্রঃ

২।শল্যদোষ : কোনও জমির মাটির ত্রুটিকে বলে শল্যদোষ।এই শল্যদোষ হল কোনও জমির প্রাথমিক দোষ।কাজেই শল্যদোষ সংশোধন অবশ্যই করা উচিত।কারণ, বাড়ি তৈরিই হয় মাটির উপর।আর মাটির দোষ কাটিয়ে ওঠার জন্য যেখানে বাড়ি তৈরি হবে সেই জায়গার সম্পূর্ণ জমির মাটি তিন গজ পর্যন্ত খুঁড়ে সেই মাটি সরিয়ে ফেলতে হবে।তারপর ভাল মাটি দিয়ে ভাল করে গোটা গর্তটি ভরাট করাতে হবে।যদিও ব্যবস্থাটি অত্যনন্ত ব্যয়সাপেক্ষ কিন্তু এই পদ্ধতিতে মাটির দোষ সম্পুর্ণভাবে দূরীভূত করা সম্ভব।

৩।জমিস্তর দোষ : বাস্তুশাস্ত্রে জমির স্তর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।জমির স্তর অর্থে জমির ঢাল এবং জমি সম্পর্কিত আনুষঙ্গিক বিষয়সমূহ।এ বিষয়ে ‘বিভিন্ন ধরণের জমি’।বাস্তুশাস্ত্র মতে জমির দক্ষিণ এবং পশ্চিম দিকটা তুঙ্গস্থ বা উঁচু থাকা বিশেষ দরকার।জমির ঢালু দিকটি থাকবে উত্তর ও পূর্ব দিকে।জমির অবস্থা এরকম না থাকলে বাড়ি তৈরির আগে জমিকে অবশ্যই সংশোধন করে নেওয়া উচিত।এই সংশোধনের ব্যয় শল্যদোষ সংশোধনের তুলনায় অনেক কম।

৪। উত্তর-পূর্ব দিকে কাটা জমি: জমি উত্তর-পূর্ব দিকে ছাঁটা বা কাটা হলে তা অত্যন্ত খারাপ ও অশুভ।এ ধরণের জমি নীচের ছবির মতো সংশোধন করে নেওয়া যেতে পারে।

ছবিঃ

এই চিত্রে ‘বিন্দু’ দেওয়া জমির অংশটি বাদ দিয়ে সেই জমির অংশ পাশের জমির মালিককে বিক্রি করে দেওয়া যেতে পারে।কারণ এই জমির উত্তর-পূর্বের কাটা অংশ ক্ষতিকর, কিন্তু পাশের জমির পক্ষে তা ক্ষতিকর নয়।এরকম ব্যবস্থা যদি না করা সম্ভব হয় তা হলে উত্তর-পূর্ব দিকে সম্ভব হলে কিছু জমি কিনে এই জমির কাটা অংশকে সমান করে নেওয়া যেতে পারে।যদি এরকম দুটি জমি পাওয়া যায়, যার একটায় ত্রুটি আছে, তা হলে দুটি জমিকে একসঙ্গে যুক্ত করে দিলে তার দোষ কেটে যায়।
গৌণ দোষ:

এই দোষ অনুবর্তী দোষ, যা অন্য দোষের ফলস্বরূপ।এ ধরণের ত্রুটি স্থান বদল করে ও তার প্রয়োগ পরিবর্তন করে সংশোধন করা যেতে পারে।বাস্তুশাস্ত্রে বিভিন্ন নীতি ও সমসাময়িক বাস্তু বিশেষজ্ঞদের অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে এই সব সংশোধনের উপায় বলা হয়েছে।কিন্তু অভিজ্ঞ বাস্তুবিদ সার্বিক পরিস্থিতি দেখে তৎপর সিদ্ধান্তু নিয়ে থাকেন।

১।ত্রিকোণ জমি: ত্রিকোণ জমি শুভ নয়।এই জমিতে বাড়ি করার আগে তাকে সংশোধন করে নিতে হবে।এই ধরণের ত্রিকোণ জমির মধ্যে থেকে নিম্নের চিত্রের মতো আয়তকার বা চৌকো জমি বের করে নিয়ে তাতে বাড়ি তৈরি করতে হবে।এ ধরণের জমিতে দিকের কোনও গুরুত্ব নেই।

চিত্রঃ

২।বিষমাকৃতি জমি: এমন জমি বিভিন্ন দিকে বিষমাকৃতি হয়।এইরূপ জমিকে জমির অবস্থান ভেদে সংশোধন করে তবেই সেই সংশোধিত জমিতে বাড়ি তৈরি করা উচিত।এ ধরণের জমিতে চিত্রে যেভাবে বাড়ানো অংশ বাদ দিয়ে আয়তাকার জমির খণ্ড বের করা হয়েছে, তাতেই বাড়ি করা উচিত।

চিত্রঃ

জমির দক্ষিণ-পূর্ব এলাকা যদি বাড়ানো থাকে তা হলে তাকে আয়তাকারে কেটে নিয়ে তাতে বাড়ি করা উচিত।পাশের চিত্রে দেখুন।

চিত্রঃ

এ ধরণের জমি যাতে উত্তর-পশ্চিম এবং দক্ষিণ-পশ্চিম দিক বাড়ানো আছে, সেখানে আয়তাকার বা চৌকো জমি কেটে নিয়ে বাড়ি করতে হবে।তবে এ ক্ষেত্রে দক্ষিণ-পশ্চিম কোণ যেন ৯০ ডিগ্রি হয়।পাশের চিত্রে দেখুন।

চিত্রঃ

যে জমির উত্তর-পূর্ব দিক বাড়ানো আছে সেখানে বাড়ি করা যেতে পারে।এ রকম জমির সংশোধনের প্রয়োজন নেই।কারণ উত্তর-পূর্ব দিকে বাড়ানো জমি শুভ ফলদায়ী।পাশের চিত্রে দেখুন।

চিত্রঃ

উত্তর-পশ্চিম এবং দক্ষিণ-পূর্ব দিকে বেড়ে থাকা জমির উভয় দিকই সংশোধন করে নিয়ে আয়তাকার বা চৌকো করে নিয়ে তাতে বাড়ি করতে হবে।যে কোনও দিকে যদি “বিষম আয়তাকার” জমি হয় তবে তার উপর ও নীচের কোণাচে অংশ দুটি জমির মাপ অনুযায়ী অল্প কিছু ছেড়ে অন্তত ৩ ফুট উচ্চতার পাঁচিল দিয়ে জমিকে চৌকো অথবা আয়তাকার করে নিতে হবে।

দর্পণের মাধ্যমে সংশোধন : যাহা আমরা / আমি করি না।বাংলাদেশের ভৌগোলিক অবকাঠামোতে এতে বাস্তু সংশোধন হয় না।আমার পূর্ব পূরুষরা এইভাবে সংশোধন করতে বারণ করেছেন।তবে ইদানিং বাংলাদেশের বিভিন্ন বাস্তুতে গিয়ে দেখেছি অনেকেই দর্পণের সাহায্যে বাস্তু সংশোধন করে হতাশায় ভুগছেন।পাঠক পাঠিকাদের ভূল ভাঙাতে তবুও আমি ওয়েব সাইটে উল্লেখ করলাম দর্পনের প্রতিবিম্বে বিভিন্ন প্রকার প্রতিচ্ছবি দৃশ্য হয়।আবার গৃহ বাসীদের শূচী/ অশূচীর ব্যাপারটাও দেখতে হবে।দর্পনের মাধ্যমে বেশ কিছু অনাকাঙ্খিত জ্যামিতিক চিত্রের প্রতিবিম্ব ঘটে যাহা বাস্তুর জন্য চরম অশুভ।বাস্তুতে দর্পণ বা আয়নার যথেষ্ট গুরুত্ব আছে।বাড়ি বা ফ্ল্যাটের বাস্তুশক্তি বৃদ্ধির জন্য দর্পণের প্রয়োজন আছে।কোনও রকমের নিম্নস্থ জায়গায় শক্তিশালী সাধারণ মানের যে কোনও আয়না রাখা দরকার।তবে এ ব্যাপারে অত্যন্ত সতর্কতার প্রয়োজন আছে।আয়না কোনও অবস্থাতেই যেন এরকম জায়গায় বসানো না হয় যাতে দক্ষিণ-পূর্ব অথবা উত্তর-পশ্চিম দিক প্রতিফলিত হয়।শোওয়ার ঘর এবং শয্যার অবস্থান অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ।কারণ শোওয়ার ঘর এবং বিছানাতেই মানুষের জীবনের এক-তৃতীয়াংশ কেটে যায়।
যদি কোনও শোওয়ার ঘর ইংরেজী এল আকারের হয় এবং শোওয়ার খাট দেওয়ালের দিকে থাকে তবে সেটা ভুল।যদিও এল আকার হওয়ার দরুণ দিকগুলি ঠিকই আছে।

চিত্রঃ

খাটের বিপরীত দিকে আয়না টাঙিয়ে এইভাবে খাট রাখার জায়গা সংশোধন করা যেতে পারে।একটি ছোট আয়না এমনভাবে টাঙাতে হবে যাতে শুধু বিছানায় তার প্রতিবিম্ব দেখা যায়।গোটা দক্ষিণ দিকটা যেন প্রতিবিম্বিত না হয়।চিত্রে এরূপ দেখানো হয়েছে।

চিত্রঃ

রান্নাঘরে রান্নার সময় গৃহিণী বা রাঁধুনি এমনভাবে রান্নার জায়গায় দাঁড়াবেন বা বসবেন যাতে দরজার দিকে তাঁর পিঠ না থাকে।রান্নাঘরের সমস্ত দিক যথার্থ থাকলেও এই নিয়ম মানতেই হবে।এই অবস্থায় রান্নাঘরের এমন জায়গায় একটি দর্পন টাঙাতে হবে যাতে বাইরে থেকে কেউ রান্নাঘরে ঢুকলে তার প্রতিবিম্ব দেখা যাবে।এই ব্যবস্থা বিশেষ করে রেস্তরাঁ ও হোটেলের রান্নাঘরের পক্ষে অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

চিত্রঃ

বাড়ির প্রধান দরজার সামনে যদি বড় স্তম্ভ বা বড় গাছ থাকে তা হলে পিরামিড-এর মাধ্যমে তা সংশোধন করা যেতে পারে।

চিত্রঃ

‘নাইফ টাইপ’ বা ছুরির মতো সার্বজনিক সোজা রাস্তার সামনে যদি বাড়ি থাকে সেটিও সংশোধন করা যেতে পারে ঝিনুকের মাধ্যমে।

চিত্রঃ

অফিস চেম্বারে ডেস্ক- টেবিল রাখার ব্যবস্থা ও সংশোধন:

অফিস চেম্বারের প্রবেশদ্বারের কোণাকুণি কোণটিই ডেস্ক বা টেবিল রাখার স্বাভাবিক স্থান।ওই কোণে বসে ঘরের মধ্যে যে আসছে তার মুখ অনায়াসে দেখতে পাওয়া যায়।প্রবেশ দ্বারের দিকে যে কোনও সোজা লাইনে বসা বা প্রবেশদ্বারকে পিছনে রেখে বসা এর কোনওটিই ঠিক নয়।বরং বসতে হবে উত্তর বা পূর্ব দিকে মুখ করে।এ ক্ষেত্রে উপযুক্ত ডেস্ক বা টেবিল রাখতে হবে নীচের চিত্রানুযায়ী।

চিত্রঃ

ডেস্ক বা টেবিল রাখার বেঠিক ব্যবস্থাঃ

মনে রাখতে হবে উত্তর দিকে যদি মুখোমুখি বসা হয় তা হলে শুধু উত্তর দিকটাই পর্যাপ্ত নয়, বাস্তব সুফল পেতে হলে ডেস্ক বা টেবিল এবং বসার পরিবেশকেও গুরুত্ব দিতে হবে।

চিত্রঃ

বিভিন্ন ধরণের জমি-বাড়ির বাস্তু অনুযায়ী সংশোধন:

জমির পাশে রাস্তা ও তার পরিবেশের কথা চিন্তা করে বাড়ির নকশা পরিকল্পনা করা উচিত।জমি যদি ঢাল হয় তা হলে সব দেওয়াল যেন সমান্তরায় না হয়।ছবিতে তার উদাহরণ দেওয়া হল।ছবিতে রাস্তার দ্বারের বাড়ি এক সমান্তরালে দাঁড়িয়ে আছে।এটা বাস্তুমতে ঠিক নয়।

চিত্রঃ

উপরের ছবিতে রাস্তার পাশ বরাবর সমন্তরাল বাড়ি তৈরি করা হয়নি।স্বাভাবিক নিয়মেই রাস্তা অনুসরণ না করে বাড়ি তৈরি করা হয়েছে।একাধিক বাড়ি বা হাউজিং কমপ্লেক্স পরিকল্পনা করার সময় উচ্চতা ও গঠন বিন্যাসের সামঞ্জস্য রক্ষার ওপর জোর দেওয়া দরকার।একই সারিতে একাধিক ভবন ও হাউজিং কমপ্লেক্স বিভিন্ন রকমের উচ্চতা, আকার ও বিন্যাসের হওয়া উচিত নয়।বাস্তু নিয়মে এটা সঠিক নয়।
নিম্নোক্ত ধরণের বাড়ি বা হাউজিং কমপ্লেক্স যথার্থ কারণ এর উচ্চতা একই রকমের।

চিত্রঃ

যে কোনও বাড়িতে তিনটি দরজা যদি একই লাইনে থাকে তা হলে সেটা খুবই খারাপ।এরকম তিন দরজাকে সংশোধন করতেই হবে।১নং দরজার মাথায় বাতাসে নড়ে এবং নূপুরের ঝনঝন শব্দকারী একটা ছোট সঙ্খ, ঝিনুক টাঙানো যেতে পারে অথবা তিনটি দরজার মধ্যে মাত্র একটি দরজার স্থান বদলে দরজার সংশোধন করে তা বাস’সম্মত করা যায়।যদি এই তিনটি দরজার মধ্যে একটি দরজাও সরানো সম্ভব না হয় তা হলে এর মধ্যে একটি দরজা তালাচাবি দিয়ে স্থায়ীভাবে বন্ধ করে রাখতে হবে, সেটা ব্যবহার করা চলবে না।

চিত্রঃ

যদি একটি দরজার বিপরীতে একটি বড় জানালা থাকে এবং তাদের অনুপাত হয় ৩ ও ১ অথবা বেশি, তা হলে এর সংশোধন প্রয়োজন।অর্থাৎ জানালা দরজার চেয়ে তিনগুণ লম্বা-চওড়ায় বেশি।

চিত্রঃ

জানালার পাল্লা ভিতরের দিকে অথবা বাইরের দিকে কোনও বাধা ছাড়াই অনায়াসে যাতে খোলে তেমনভাবে তৈরি করতে হবে।যদি জানালা খোলার সময় অসমতল থাকে, তা হলে তা সংশোধন করে নিতে হবে।এ ক্ষেত্রে জানালায় টাসেল লাগানো পর্দা ঝুলিয়ে অথবা একটি তোরণ দিয়ে বা ঝোঁকানো ফ্রেম দিয়ে সংশোধন করতে হবে।

চিত্রঃ

ড্রইং রুম, লিভিং ও অফিসে কখনও নিচু ও ভারী বিমের তলায় বসা উচিত নয়।শুধু এই সব ঘরেই নয়, এরকম ভারী ও নিচুও বিমের তলায় শোওয়াও অনুচিত।

চিত্রঃ

এ ক্ষেত্রে সংশোধনের দুটি উপায় আছে।

(ক) ফল্‌স সিলিং তৈরি করে এবং (খ) বসার জায়গা পরিবর্তন করে।

* অফিস বা বাড়িতে যদি দুটি কোণ একটি জায়গায় এসে যথার্থভাবে না মেলে তা হলে ধারালো কোণে ৩/৯ টি ঝিনুক টাঙাতে হবে অথবা ওই কোণ বরাবর একটি লতাগাছ লাগিয়ে দিতে হবে।এটাই হল এ ধরণের কোণের বাস্তুমতে সংশোধন।

চিত্রঃ

যদি কোনও জমি অথবা বাড়ির আকার ইংরেজি বর্ণমালার “T” অক্ষরের মতো হয় তবে সেই জমি বা বাড়ির সামনে দু’পাশে দুটো বৃক্ষ রোপণ করে এই ত্রুটি সংশোধন করা যেতে পারে।নীচের চিত্রে দেখানো হলো।

চিত্রঃ

যদি লম্বাকার কোনও জমির শেষের দিকে কোনও বাড়ি, ঘর অথবা কারখানা থাকে তা হলে সামনের ফাঁকা জায়গাকে আলোর মাধ্যমে সামঞ্জস্যে আনা সম্ভব হয়।নীচের চিত্রে বোঝানো হয়েছে।

চিত্রঃ

নীচের বেখাপ্পা আকৃতির জমিটি বাড়ি তৈরির পক্ষে সম্পুর্ণ অনুপযুক্ত।কিসন্তু এই রকম আকৃতির জমিতে পার্ক, প্রমোদকানন বা রেস্তরাঁ, হোটেল করা যেতে পারে।এই সব কাজে জমিটিকে ব্যবহার করতে গেলে বাস্তুমতে ভূমিখণ্ডটিকে ঘিরে বিশেষ ধরণের আলোক-প্রাচীর করে একটি বাস-ব আয়তাকার বা চৌকো আকার দিতে হবে।মাঝখানে বিকল্প সংশোধন ব্যবস্থা হিসাবে একটি ফোয়ারার ব্যবস্থাও করা যেতে পারে।নীচের চিত্রে ১ ও ২ নং পরের পৃষ্ঠায় ৩ ও ৪ চিত্র দেখুন।
বিভিন্ন বাস্তুশাস্ত্র মতে যদি বাড়িঘর বাস্তশাস্ত্র অনুসারে তৈরি না করা হয় তা হলে ‘বাস্তুকৃত্য নামক কবচ যন্ত্রমকে বাড়ির উত্তর দিকে মাটিতে পুঁতে রাখতে হবে।তা হলে বাস্তুদোষ দূর হয়ে যাবে।শাস্ত্র বিধি অনুসারে ফ্ল্যাটবাড়িতে ‘বাস্তকৃত্য’ যন্ত্রম সোন, রুপো ও তামা দিয়ে তৈরি করে বাড়ির বা ফ্ল্যাটের উত্তর-পূর্ব কোণে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।এই বাস্তুকৃত্য যন্ত্রটি তৈরি করতে প্রায় তিন মাসের মতো সময় লাগে কারণ এটি শুধু বিশুদ্ধ বাস্তুমুহূর্তে তৈরি করা সম্ভব আর বাস্তুমুহূর্ত এক দিনে মাত্র সাতাইশ মিনিটের মতো পাওয়া যায়।এটি খুবই সময় সাপেক্ষ।এর ফলে মানুষ অবশ্যই সুখ, শান্তিসমৃদ্ধিশালী হয়ে বাসস্থানে বসবাস করতে পারবে।এক্ষেত্রে বাস্তুবিদকে সময় দিতে হবে তৎসঙ্গে নিজেকেও ধৈর্য্য অবলম্বন করতে হবে।

এই পদ্ধতি সম্ভব না হলে ঝিনুক বড় আকারের এবং ‘মঙ্গল যন্ত্রম, কোরআন শরীফের ‌পবিত্র আয়াত অন্যান্য ধর্মালম্বীদের তাঁদের ধর্মনুসারে পবিত্র চিহ্ন সোনা, রুপো অথবা তামা দিয়ে অন্ততপক্ষে ৬// ক্ম ৬// আকারে বানিয়ে শুভ মুহূর্তে স্থাপন বা পতিষ্ঠা করা যেতে পারে।এতে বাস’দোষ কাটে এবং সুখসমৃদ্ধি ফিরে আসে।

মঙ্গল যন্ত্র :

চিত্রঃ

স্কন্দ পুরাণে বলা হয়েছে যে মঙ্গলযন্ত্র, ধনদায়ক, ঋণনাশক, সর্ব রকম কাজের বাধা দূর করে, এবং ভূমির অশুভ থেকে রক্ষা করে।বাস্তুর শেষ কথা না হলেও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কথা বলা হয়েছে বিশিষ্ট গ্রন্থ ‘মানসার’-এ।দোষের চেয়ে গুণ যদি বেশি থাকে তা হলে ক্ষতি নেই, কিন্তু গুণের চেয়ে যদি দোষ বেশি হয়ে যায় তা হলে তাকে ত্রুটিপূর্ণ বাস্তু বলে গণ্য করতে হবে।আগেই বলা হয়েছে, ‘বাস্তুবিদ্যা’ কয়েক কোটি প্রাচীন।এ হল সুষ্ঠুভাবে উপলদ্ধি করার বিষয় এবং বর্তমান যুগে ভবন নির্মাণ, বসবাসের ব্যাপারে তাকে ঠিকভাবে গ্রহণ করা দরকার।এই সঙ্গে এ কথাও মনে রাখতে হবে যে ভবন ও ফ্ল্যাট নির্মাণের আধুনিক চাহিদার কথা ভাবতে গিয়ে আমরা বাস’র মৌল সিদ্ধান্ত গুলিকে যেন লঙ্ঘন না করি।

শ্রী যন্ত্র অমুসলিমদের জন্য, মুসলমানগণ কোন ক্রমেই এই যন্ত্রম ঘরে অর্থাৎ বাস্তুতে রাখবেন না।

চিত্রঃ

বেদের সূত্র অনুসারে অনন্ত বিশ্বের সৃষ্টির উৎস হল শক্তি।আর সমন্ত সাধনার মূল হল শক্তি উপাসনা।শক্তি উপাসনার চরমে পৌঁছতে গেলে লাগে শ্রীবিদ্যা।শ্রীযন্ত্র হল যন্ত্ররাজ। শ্রীযন্ত্রের পুজো করলে সর্বদোষ ক্ষয় হয় এবং পূণ্য লাভ হয়।